‘শ্রীলঙ্কার মাটিতে ২০০ পারলে দেশে ৩০০ অসম্ভব নয়’

0
525

মিরপুর টেস্টের ভবিষ্যৎ কী—সেটি আজ শেষ বিকেলের দৃশ্যই সব বলে দিচ্ছিল। রোশেন সিলভা ও সুরঙ্গা লাকমাল যখন অপরাজিত থেকে ফিরছিলেন, ড্রেসিংরুমের সামনে তাঁদের অভিনন্দন জানাতে সার বেঁধে দাঁড়িয়ে গেলেন খেলোয়াড় ও কোচিং স্টাফরা।

রোশেন-লাকমাল ম্যাচ জিতিয়ে ফেরেননি, ম্যাচ বাঁচিয়েও ফেরেননি। তবুও কেন তাঁদের এই সুশোভিত ‘অভ্যর্থনা’! চন্ডিকা হাথুরুসিংহে যেটা চেয়েছিলেন (আজ অলআউট না হওয়া), সেটা দারুণভাবে করতে পেরেছেন দুজন। কোচ-সতীর্থদের অভিনন্দন পেয়ে বিকেলের মরে আসা আলোতেও ৫৮ রানে অপরাজিত রোশেনের মুখটা ভীষণ উজ্জ্বল দেখাল!
উল্টো ছবি বাংলাদেশ দলে। ক্লান্ত-বিষণ্ন মুখে একে একে ড্রেসিংরুমে ফিরলেন খেলোয়াড়েরা। টেকনিক্যাল ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদের পিঠ চাপড়ে দেওয়াটাও মনে হয় না উজ্জীবিত করতে পারল কাউকে!
শ্রীলঙ্কা ৩১২ রানে এগিয়ে গেছে। প্রথম ইনিংসে ১১০ রানে অলআউট হওয়া বাংলাদেশের মুখে হাসি থাকে কীভাবে? দলের প্রতিনিধি হয়ে সংবাদ সম্মেলনে আসা মেহেদী হাসান মিরাজ তবুও হাসিখুশি থাকার চেষ্টা করলেন। বলে গেলেন, ‘আমাদের আত্মবিশ্বাস আছে, সকালে দ্রুত উইকেট তুলে নেওয়ার পর ওরা যে রান করুক, সেটা তাড়া করতে হবে।’
—কিন্তু কীভাবে?
মিরাজ: স্বাভাবিক খেলা খেলতে পারলেই ব্যাটসম্যানরা সফল হবে।
—এই উইকেটে সেটা সম্ভব?
মিরাজ : আমাদের ব্যাটসম্যানরা পূর্ণ মনোযোগ ধরে রেখে খেলতে পারলে ভালো কিছু আশা করা সম্ভব।
—যে দলের প্রথম ইনিংসে ১০০ করাই টানাটানি, তাঁরা কঠিন এই পথটা পাড়ি দিতে পারবে?
মিরাজ: প্রথম ইনিংসের ব্যর্থতা আমরা ভুলে যেতে চাই। এখন আমাদের লক্ষ্য ওরা যত রানের লক্ষ্য দেবে সেটা টপকানো।
১৭ বছরের টেস্ট ইতিহাসে বাংলাদেশের সর্বোচ্চ ২১৫ রান তাড়া করার রেকর্ড আছে। দেশের মাটিতে সেটি মাত্র ১০১। সেখানে ৩০০ রানের বেশি তাড়া করে জেতার আত্মবিশ্বাস মিরাজ পাচ্ছেন কোথায়! তরুণ স্পিন-অলরাউন্ডারকে আশা দিচ্ছে শ্রীলঙ্কাই, ‘শ্রীলঙ্কার মাটিতে (গত মার্চে) আমরা টেস্ট জিতেছিলাম প্রায় ২০০ (১৯১) তাড়া করে। শ্রীলঙ্কার মাটিতে যদি ২০০ তাড়া করতে পারি, দেশের মাটিতে ৩০০ তাড়া করে জেতা অসম্ভব নয়। সেই আত্মবিশ্বাস আমাদের আছে। সিনিয়র খেলোয়াড়েরা নিশ্চয়ই দায়িত্ব নেবে এবং ভালো খেলবে। নিজেরাও জানে তারা ভালো করলে দল ভালো ফল করবে।’
মিরাজ যা-ই বলুন, সংবাদ সম্মেলনে রূঢ় বাস্তবতাটা মনে করিয়ে দিলেন রোশেন, ‘আমি মনে করি না এই উইকেটে ৩০০ রানের বেশি তাড়া করা সম্ভব, সাধারণ জ্ঞানেই এটা বলা যাচ্ছে। তবে ক্রিকেট ফানি গেম, আমরা তাদের ১০০ রানের মধ্যে আটকে ফেলতে চেয়েছি, পরে ৩০০-এর বেশি যত লিড নেওয়া যায়। এরই মধ্যে সেটা করেও ফেলেছি। কাল সকালে আরও যত বেশি রান করে বড় লক্ষ্য ছুড়ে দিতে চাই।’
ম্যাচের গতিপথ অনুমান করতে পেরে আজই ছাত্রদের যেভাবে অভ্যর্থনা জানালেন হাথুরু, মাহেন্দ্রক্ষণে কী করবেন কে জানে!