ভেনিসের মেস্ত্রে স্থানীয়‌ একটি রেস্টুরেন্টে ভেনিস বিএনপির পক্ষ থেকে বিএনপির জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উদযাপন।

0
63

ভেনিসের মেস্ত্রে স্থানীয়‌ একটি রেস্টুরেন্টে ভেনিস বিএনপির পক্ষ থেকে বিএনপির জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উদযাপন।

কাজী মাহফুজ রানা, ভেনিস , ইতালি।

===••••=======•••••======•••••=====••••==

রবিবার ইতালির ভেনিসের মেস্ত্রে একটি স্থানীয় বাঙ্গালী রেস্টুরেন্টে জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস
উজ্জাপন করেছে ভেনিস বিএনপি।ভেনিস বিএনপির সভাপতি আব্দুল আজিজ সেলিমের সভাপতিত্বে ও সাধারন সম্পাদক শমসের আকবর পলাশ এর পরিচালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভেনিস বিএনপির প্রধান উপদেষ্টা শামীম দেওয়ান , বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ছাত্র নেতা রফিকুজ্জামান ঠাকুর,

প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ভেনিস বিএনপির সহ সভাপতি জব্বার মাঝি , ভেনিস বিএনপির সাবেক প্রধান উপদেষ্টা আজাহার শরীফ, ইতালি বিএনপির সহ
সভাপতি জিয়াউল হক কালাম , ভেনিস বিএনপির যুগ্ন সাধারন সম্পাদক আব্দুল মান্নান, সাংগঠনিক সম্পাদক ইব্রাহিম সরদার, সােহেল ঠাকুর , হাবিব শিকদার , এম ডি হৃদয় , সাবেক সাহিত্য সম্পাদক কাজী মাহফুজ রানা ও যুবদল নেতা রফিকুল ইসলাম , নীরব আহম্মেদ শুভ সহ উপস্থিত ছিলেন অনেক জাতীয়তাবাদী নেতৃবৃন্দ।

পবিত্র কোরান তেলাওয়াতের পর বক্তারা অতন্ত সুন্দর সময়োপযোগী প্রতিবাদী অগ্নিঝরা বক্তব্য রাখেন। তারা বলেন ১৯৭৫ সালে বাংলাদেশের আধিপত্যবাদ, একনায়কতন্ত্র, একদলীয় শাসন, জনজীবনের বিশৃঙ্খলা ও অস্থিতিশীল পরিবেশ ও অরাজকতা থেকে –

৭ডিসেম্বরে জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবসে সিপাহী জনতারা যেভাবে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানকে বন্দি দশা থেকে মুক্ত করে আনে বাংলাদেশের রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্ব দেন তেমনিভাবে বর্তমান‌ বাংলাদেশের অস্থিতিশীল পরিস্থিতি থেকে উদ্ধার পেতে দেশনেত্রী বেগম জিয়াকে কারাবন্দিত্ব থেকে মুক্ত করে আনতে হবে।

বিনা ভোটের ফ্যাসিবাদ সরকারের হাত থেকে
বাংলাদেশ ও ইসলাম রক্ষা করতে হবে।
জনগণের ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনতে হবে। তাই বাংলাদেশ‌ সহ বিশ্বের সকল জাতীয়তাবাদী শক্তি এক হতে হবে।মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময়ে কিংবা ১৫ আগস্টের পর ক্ষমতা লোভী সেনানীদের একের পর এক ক্যু হতে শহীদ জিয়া দেশকে যেভাবে সুসংগঠিত করেছেন ,যুদ্ধ বিধস্ত বাংলাদেশকে একটি সমৃদ্ধ রাষ্ট্রে পরিনত ,ও,ষ,করেছেন , এশিয়ার দেশগুলােকে একত্রিত করে সার্ক গঠন করেছেন ।

সেই মহান নেতার যোগ্য উত্তরসুরী তারুণ্যের অহংকার তারেক জিয়াকে বাংলাদেশে ফিরিয়ে আনতে সকল জাতীয়তাবাদী শক্তিকে সুসংগঠিত হতে হবে। র ‘ এর এজেন্টদের বাংলার‌ জনতার আদালতে বিচারের আওতায় আনতে হবে তবেই বাংলাদেশ পাবে একটি জনগণের ভোটের সরকার। ফিরে পাবে গণতন্ত্র ।

বক্তারা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের আত্মার শান্তি কামনা , ৩ বারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশমাতা বেগম খালেদা জিয়ার রােগ মুক্তি ও কারা মুক্তি কামনা এবং তারেক রহমানের স্বদেশ ফেরার ও দীর্ঘায়ু কামনা করেন।। সবশেষে মজাদার বিরিয়ানির নৈশভােজে অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘটে।