চ্যানেল প্রবাহ আনন্দ ভ্রমণ ভেনিস টু লাগো দি মলভেনো ।

0
102

চ্যানেল প্রবাহ আনন্দ ভ্রমণ ভেনিস টু লাগো দি মলভেনো । চ্যানেল প্রবাহ নিউজ ডেস্ক :-

<<<<<<<<<<<<<<<~~~~>>>>>>>>>>>>>

করোনার দুর্বিসহ মরক গোটা বিশ্ব যখন নরক ।
প্রবাস জীবনে নানা পেরেশানিতে হাঁপিয়ে উঠা মানুষদের কিছুটা আনন্দ দিতে চ্যানেল প্রবাহের উদ্যোগে রবিবার ইতালির ভেনিস থেকে ত্রেন্তিনোর মলভেনো লেক ভ্রমণের এক সুন্দর আয়োজন করা হয়। যাত্রা লগ্নে ভেনিসের হসপিটাল আঞ্জেলোতে সদ্য প্রয়াত মরহুম মিয়া শাহীন ও মশিউরের জন্য দোয়া করা হয়। সেখানে উপস্থিত ছিলেন –


মারঘেরা মসজিদের ইমাম সাহেব , জনাব মনোয়ার ক্লার্ক , বিল্লাল‌ হোসাইন , চ্যানেল প্রবাহের প্রধান উপদেষ্টা মোবারক হোসাইন , প্রধান পৃষ্ঠপোষক বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শাইখ আহমেদ, ব্যস্থাপনা পরিচালক কাজী মাহফুজ রানা , সহ ব্যবস্থাপনা পরিচালক সোহেলা আক্তার বিপ্লবী , আফসারি খানম রিক্তা , মিয়া হাবিব , সুমন সরকার , আব্দুর রহমান , আবুল কালাম আজাদ সহ ভেনিসের বিশিষ্ট জন ও আনন্দ ভ্রমণের সকল সম্মানিত অতিথিগণ।

ট্রেন্টিনোতে ব্রেন্টা ডলোমাইটসের পাদদেশে মোলভেনো লেকের সমুদ্র সৈকত, পরিবার এবং ক্রীড়া প্রেমীদের আকর্ষণীয় দর্শণীয় স্থান।
অপরূপ সৌন্দর্যের নয়নাভিরাম সুন্দরতম প্রকৃতির
নৈসর্গিক হৃদয় ছোঁয়া দর্শণীয় হ্রদ। যার একমাত্র বসতি হল মলভেনো, ইহা বেসিনের উত্তর প্রান্তে অবস্থিত। পশ্চিমে ব্রেন্টা ডলোমাইটস গ্রুপ এবং দক্ষিণ পূর্ব দিকে প্যাগানেলা – মাউন্ট গাজার মধ্যে তার সীমানা ।


অ্যাকুয়া পার্ক, অ্যানিমেশন পার্ক এবং ওয়াটার স্পোর্টস অন্যতম প্রধান আকর্ষণ। খেলাধুলা, প্রকৃতির নয়নাভিরাম সৌন্দর্যের স্বর্গ লাগো দি মলভেনো । ক্যাবল কার ও বেলুনে শূণ্যে ভেসে অপরূপ সৌন্দর্য উপভোগ করা কতোটা আনন্দময় তা ভাষায় বর্ণনা করা অসাধ্য। ডলোমাইটের টকটকে প্রাকৃতিক মনোরম দৃশ্য পরিবার নিয়ে দর্শণের স্বাদ কখনো লিখে শেষ করা যাবেনা।

১২ হেক্টর সমুদ্র সৈকত ঘাসে আবৃত এবং তিনটি খেলার মাঠ বাচ্চাদের এবং পরিবারের জন্য ভীষণ
আনন্দ দায়ক। বাচ্চাদের জন্য “প্লেয়া পার্ক”, স্লাইড এবং ওয়াটার গেমস সহ সুইমিং পুল সেন্টার, এমটিবি দিয়ে বাইক চালানোর দারুণ সুন্দর ব্যবস্থা। আছে সৈকতে একটি বিনামূল্যে অ্যানিমেশন পরিষেবা ।ক্যাবল কারে বসে নিচে মলভেনো‌ লেক দেখতে কতোটা অপরূপ তা বর্ণমালার শব্দে প্রকাশ কখনোই সম্ভব নয়।

এক কথায় মলভেনো লেক যেন এক যাদুর নগরী ।
চ্যানেল প্রবাহ আনন্দ ভ্রমণে অতিথীদের জন্য ছিল
নানা বিনোদন। নাস্তা , খাবার দাবার ও সবশেষে
র‍্যাফেল ড্র ও আকর্ষণীয় পুরষ্কার।